Datis, A chief of Gangaridai

A fantastic writings about the history of Bengal the gangaradia empire although Bangladesh by Tim Steel


History hides weaves of connections of the land we call home


There are thick layers of murk that veil the early history of these lands that are now Bangladesh. The most obvious layer is that of time.
There is little doubt that one of the earliest forms of written language, Sanskrit, had developed in the lands around the Ganges, as is so often claimed, by Hindu devotees for the propagation of religious teaching.
Word of mouth was by far the most common and early form of such teaching in the age of widespread illiteracy. The written form was more likely used to record commercial transactions in the flourishing centre of trade.
However, the deficiency of enduring surfaces for such writing means that, apart from early, splendid architectural and sculptural forms, little, if anything else, material has survived.
The second layer of murk is, literally, the depth of the layer. The layer that is of the alluvial out-wash from the annual inundations of Himalayan melt waters, and monsoon rains.
Far beneath that layer, who knows what treasures of early heritage might have survived to bear testament to what was unquestionably one of the world’s earliest centres and crossroads of trade, even of civilisation itself.
The third, and today the most challenging of the murk through which to peer for evidence of the early history, is the deficiency of resources in Bangladesh, for archaeology, specially by comparison with those in India, and the politicisation of the history of the subcontinent by, especially, India.
What India cannot ignore, it attempts to hijack. India claims the ancient capital of Gangaridai lying close to Calcutta, ignoring the huge site on the banks of the Old Brahmaputra at Wari Bateshwar, in much the same way it has attempted to take possession of Jamdani.
Bangladesh itself seems preoccupied from the middle of the 18th century to mid 20th century, obsessing with the ills inflicted by the British, largely to the exclusion of the historic ills of the Pakistan period, especially the last few years, and even that of the Mughal and Sultanate regimes, neither of which appear to have left any substantial bequest for the good of the embryonic Bangladesh society.
Even the great faith of Islam certainly arrived in these lands at latest by the Pala era; like the earlier Gupta period, tolerant of all faiths.
Through these layers of murk, lacking locally produced documentary commentary, and with a somewhat warped attitude toward tangible, environmental and circumstantial evidence, as well a substantial lack of interest in such archaeological evidence as is uncovered, it is not always easy for the commentator today to pin point persons, places, and developments of local genesis.
However, whilst histories were written in the pre Common Era, one suspects that close scrutiny of sources in Arabia, Persia, and even North Africa might turn up some interesting Bangladeshi history, sparse in individual and human contributions to the history, there are names that occasionally emerge.
Why would such material be relevant to today’s Bangladesh? There are, of course, those who would contend that Bangladesh had no history prior to 1971.
That is like Britain denying any history prior to the Act of Union, in 1707, that created the United Kingdom of Great Britain and Ireland; or ignoring, in the face of such overwhelming evidence, any history before 1066, and the Norman invasion, with all its awful consequences for Saxons and Britons alike.
As a modern society, all of us are the product of our social, economic, environmental, and, perhaps above all, our genetic histories. And from them, there is no real escape. It is, quite literally, in our DNA! A DNA of which the people of Bangladesh may have one of the widest diversity of origins in the world.
So, we may turn over the Palaeolithic, Mesolithic, and Neolithic stone tools and weaponry recovered from places within today’s Bangladesh, and speculate upon the contribution of nameless and faceless ancestors to the evolution of today’s nation. We may, if we read the records of neighbouring peoples, such as those of prehistoric times in Myanmar, China, Nepal and India, gain a better appreciation of just what form of human, or humanoid, created such utilities of ancient lives.
And, slowly, we may learn to appreciate, not merely the contribution of the named, recent forebears who have created our people -- Bangladeshis -- but the foundations for our people, laid millennia ago.
To understand where we have come from, may well provide clues to where and how capable we are of developing.
The earliest glimpse of an early Bangladeshi appears, it seems, in a fine and famous, literary work of over two thousand years ago, the first half of the 3rd century BCE.
Apollonius of Rhodes. Born in Egypt, at the time a regular source of trade with the Ganges delta, and a kingdom we can now identify from the writings of Greek, Roman and Chinese as lying at the heart of what is now Bangladesh, Gangaridai. He rewrote the 8th century BCE, Homeric saga of Jason and the Argonauts, the legends of the Golden Fleece.
In his rewrite he included a character, Datis, “a chief of Gangaridai,” who was in the army of King Perses 3rd, fighting in a civil war in Colchis, now identified as a part of modern Georgia, on the north coast of the Black Sea.
There is ample evidence that Colchis really existed. Of both King Perses, and even Datis, himself, we can be less sure.
In ancient romantic writing, facts were usually wreathed in legend. But, although it is now generally accepted that the Kingdom of Gangaridai, lying at the heart of the delta of the Ganges did exist, we may never know what he looked like, or anything of his personal history.
However, his inclusion in Apollonius’ romance suggests the international awareness, not only of the Kingdom itself, but also of its formidable strengths.
We have no names from the very famous Roman poet, Virgil, of the 1st century BCE, but his Georgic that would celebrate in “gold and ivory the battle of the Gangaridai and the arms of our victorious Quirinius,” suggests that Apollonius, two centuries earlier, was not alone in admiring the military strength of the people of Gangaridai. Quirinius certainly existed, a successful general of Roman armies fighting in Asia Minor at that time.
Might we reflect upon the beginnings of our understanding and appreciation of the very human qualities of these earliest of men from the lands of today’s Bangladesh.
Qualities to take pride in. Qualities which have earned the interest and admiration of writers and visitors from across the known world, creating a cultural, social and historic heritage that if presented to the world could, even today, enhance the fame and the fortune of the peoples of Bangladesh. 

Homosexuality in Bangladesh Promoting By British Council and American Center


12 September We saw a very bizarre and ruinous article -


“The Story of DHEE” in the Daily Star. The article depicted a homosexual girl “DHEE” and the challenges she faces.
And the purpose of the article was to “enlighten” people about homosexuality and create acceptance about homosexuality. We must say this is very foolish and heinous step from a national newspaper such as the Daily Star.

And the purpose of the article was to “enlighten” people about homosexuality and create acceptance about homosexuality. We must say this is very foolish and heinous step from a national newspaper such as the Daily Star. And the purpose of the article was to “enlighten” people about homosexuality and create acceptance about homosexuality. We must say this is very foolish and heinous step from a national newspaper such as the Daily Star.

The Daily star is a national newspaper and people from all ages over the country read this newspaper. Such a publication is going to be seen by many young children, We would like to ask Mahfuz Anam, Do you really want them to think that this mental sickness is normal ? That they can be homosexual and that’s perfectly normal ? 


 Think rationally - In our society there are million of people
attracted to ganja, yaba, drugs , smoking and all other bad things of this world. It’s just like this - bad things have that appeal
But “Should” we take them? 
Should we be calling them normal?
 No! That's where self control or restraint comes in. 
Moreover, conscious readers of Bangladesh easily consider this kind of article and/or comics as a direct hit on our social values and a broadly-planned project to make our culture most westernized and immoral .

Homosexuality is what it is. A mental state or sometime genetically developed sexual orientation   .

 But the comic was all about supporting the side of the confused girl. The way she is confused - She needs mental and psychological help. But the comic totally denies the obvious and try to follow the immoral trends by promoting such kind of sick acts. 

 If we look closely- there were four biased options the readers were asked to choose. It was a trick to fool the readers into thinking that - “
Getting Help and Being normal” isn’t a considerable option but “Suicide” was!! 


The writing style is very sneaky and deceiving like any other international pro-homosexual writing- Denying the obvious, hiding the fact that it is nothing else but an anomaly.

 And they are promoting to "accept" this mental sickness? God bless us.

The comic was a initiative of BOB(Boys of Bangladesh) a LGBT organization who was promoted by the British Council and American Center of US Embassy.


These foreign collaboration with the bangla cartoon series - Project Dhee is really a bad sign for Bangladeshi culture and it’s future. While the country currently suffers from huge sexual harassment and rape problems, where the integrity of the youth society is being destroyed by the western culture every day, promoting such kind of sickness is even more destructive. This kind of project is a very wider plan to make this country more sexually unstable like meany countries, which by the way is the ideal for the freethinkers.

 But we are not the westerners and our morality does not accept such kind of sickness. Please stop your propaganda to our young children. Stop trying to make them confused.



Written By

Noman Hasan 
Social Worker, 1971 Youth Command 

মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিষয়টা কী?


বাংলাদেশে বর্তমানে বহুল উচ্চারিত শব্দ “মুক্তিযুদ্ধের চেতনা”। কিন্তু কখনো প্রশ্ন করতে পারবেন না, এই মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিষয়টা কী? এটা নিয়ে একটা স্ট্যাটাস দিয়েছিলাম। সেখানে কেউ কেউ কমেন্ট করেছেন যে এটা নিয়ে যারা প্রশ্ন করে তারা "রাজাকার"। অর্থাৎ মুক্তিযুদ্ধের চেতনা নিয়ে আপনি শুধু জাবর কাটতে পারবেন বুঝতে চাইতে পারবেন না, কারণ সেটা ঐশ্বরিক। ঠিক এভাবেই বুদ্ধিজীবীরা এটাকে সংজ্ঞায়িত করতে চান। 

ইউ ল্যাবের শিক্ষক মোহিত উল ইসলাম “মুক্তিযুদ্ধের চেতনা জিনিসটা কী” এই প্রসঙ্গে একটা নিবন্ধে লিখেছিলেন,

“চেতনা কার্যত একটি অদৃশ্যমান অনুভূতি,কিন্তু এটার দৃশ্যমান প্রতিফলন হয় বাস্তব জগতে কর্মের মাধ্যমে। কর্মটাকে বুঝলে চেতনাটাকেও বোঝা যাবে। খুব সাদামাটাভাবে বললে, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা হচ্ছে সেই কর্মটি যার ফলে বাঙালির স্বশাসিত একটি সার্বভৌম রাষ্ট্র অর্জিত হয়েছে।“

দেখুন খুব সুচতুর ভাবে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে একটা অদৃশ্যমান অনুভুতি বানিয়ে ফেলা হোল। এতে সুবিধা অনেক কারণ নিজের পছন্দ আর ইচ্ছামত যে কোন কিছুতেই মুক্তিযুদ্ধের চেতনা তকমা লাগিয়ে দিলে কাজটাও উদ্ধার হবে আবার যেহেতু সেই চেতনা অদৃশ্যমান তাই সেই চেতনার বাস্তবায়নের দায় নিতে হবেনা। 

আমি “মুক্তিযুদ্ধের চেতনা” এই কী ওয়ার্ডে গুগলে সার্চ দিলাম। যেই লেখাগুলো পেলাম সেখান থেকে উদ্ধৃত করছি উনারা “মুক্তিযুদ্ধের চেতনা” বলতে কী বোঝেন? 

ইউ ল্যাবের শিক্ষক মোহিত উল ইসলাম “মুক্তিযুদ্ধের চেতনা জিনিসটা কী” নিবন্ধে আবার ও লিখেছিলেন। 

“মুক্তিযুদ্ধের চেতনা হচ্ছে বাংলাদেশকে স্বাধীন করার ব্রত। বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে আজ ৪০ বছর, কিন্তু মুক্তিযুদ্ধের চেতনার কার্যকরতা এখনো শেষ হয়ে যায়নি। খাপছাড়া গোছের শোনাবে কথাটি, কিন্তু যে বৈঠকি আলাপটি সেদিন আমার মন বিষিয়ে দিয়েছিল, সেটাতে যত সুধীজন অংশগ্রহণ করেছিলেন তাঁদের এক থেকে শেষ পর্যন্ত সবারই প্রতিষ্ঠা নিশ্চিত হয়েছিল মুক্তিযুদ্ধের চেতনার ফলে বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল বলে।“ 

তার মানে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা যেটাই হোক সেটার জন্ম ১৬ ই ডিসেম্বরের আগে। এবং এই চেতনার ব্রত আমাদের মুক্তিযুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়তে উদ্বুদ্ধ করেছিলো। কিন্তু সেই “ব্রত” টা কী? আরো খুজতে থাকি। 

“মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও আজকের বাংলাদেশ” শিরোনামে প্রফেসর ড. এম শমশের আলী লিখেছেন

“মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, অন্যায়ের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াবারই চেতনা।“

খুব ভালো কথা তার মানে সিরিয়ায় রাসায়নিক অস্ত্রের ব্যবহারের যদি প্রতিবাদ করি সেটাও তাহলে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা!! 

মুক্তমনা ব্লগে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও আজকের বাঙলাদেশ শিরোনামে মোঃ জানে আলম লিখেছেন,

“আমাদের স্বাধিকার থেকে স্বাধীনতা আন্দোলনের মধ্যদিয়ে গড়ে ওঠা চেতনা ও মূল্যবোধগুলোই আমাদের স্বাধীনতার চেতনা হিসাবে বিকশিত হয়ে গণতন্ত্র-সমাজতন্ত্র-ধর্ম নিরপেক্ষতা -জাতীয়তাবাদ প্রভৃতি চার মূলনীতি হিসাবে সদ্য স্বাধীন রাষ্ট্রের সংবিধানে গৃহীত হয়েছিল।“

এটাকে মেনে নিতে কষ্ট হচ্ছে কারণ আমরা আগেই স্থির করেছি এই চেতনাই আমাদের মুক্তিযুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়তে উদ্বুদ্ধ করেছিলো, এবং এটা অবশ্যই ২৬ শে মার্চের আগের বিষয়। সংবিধান তো রচিত হয়েছে স্বাধীনতার পরে। 

মুক্তিযুদ্ধের চেতনা: বর্তমান ও ভবিষ্যৎ শিরোনামে মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন লিখেছেন,

“শোষণ জুলুমের বিরুদ্ধে আপোষহীন সংগ্রাম পরিচালনা করার অগ্নি শপথপুষ্ট চেতনার নামই মুক্তিযুদ্ধের চেতনা।“

তাহলে আজকের গার্মেন্টস শ্রমিকদের আন্দোলন কী মুক্তিযুদ্ধের চেতনা? 

মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, দেশপ্রেম ও নতুন প্রজন্ম শিরোনামে লিখেছেনঃ মাসিক সুহৃদ

“১৯৭১ সালের ঐতিহাসিক সেই মুক্তিযুদ্ধ শুরু হয়েছিল যে বোধ বা চেতনাকে কেন্দ্র করে, তারই নাম মুক্তিযুদ্ধের চেতনা। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা একটি বলিষ্ঠ চেতনা, আত্মপ্রত্যয়ের সুদৃঢ় উচ্চারণ।“ 

উত্তর কোথাও থেকে পেলেন না। কোন কিছুই স্পষ্ট হোল না। এটা নিয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেয়ার পরে বন্ধু মাসুদ রানা জানান, স্বপন কুমার চৌধুরী, যিনি ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটীর একজন গুরুত্বপূর্ণ নেতা ছিলেন। যুদ্ধের আগে সম্ভবতঃ ৭১-এর শুরুতে বা ৭০-এর শেষ দিকে, তিনি 'স্বাধীন সমাজতান্ত্রিক বাংলাদেশ'-এর প্রস্তাব করেছিলেন। সেটি গৃহীত হয়েছিলো। এটি এসে থাকবে বঙ্গভঙ্গের শেষের লগ্নে শরৎবসু ইত্যাদির প্রাস্তাবিত স্বাধীন সমাজতান্ত্রিক বাংলা থেকে। ১৯৭১ সালের ২রা বা ৩রা মার্চ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে স্পেসিফিক্যালী 'স্বাধীনতার ইশতেহার' পাঠ করা হয় এবং স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করা হয়। বাংলাদেশের স্বাধীনতার স্বপ্ন, প্রস্তাবক ও লড়িয়েরা হচ্ছেন প্রাথমিকভাবে বাঙালী ছাত্র সমাজ, যাঁরাঃ ১৯৪৮ সাল থেকে ভাষা আন্দোলন, ১৯৬২ তে শিক্ষা আন্দোলন এবং ১৯৬৯ সালে গণ-অভূত্থানের মধ্য দিয়ে দারুন এক পরিপক্কতা নিয়ে জাতির অগ্রসরতম চিন্তার নেতৃত্বে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিলো। সে-সময়ে বিশ্বব্যাপী ছাত্রদের উত্থান ফ্রান্স থেকে শুরু হলেও ১৯৬৮ সালে ফ্রান্সে তা বিফল হয়। কিন্তু ১৯৬৯ সালে বাংলায় তা সফল হয়। এটিই ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের প্রেরণা তৈরী করে। ৬ দফা ও ১১ দফা হচ্ছে ঐতিহাসিক পূর্বগামী ডকুমেন্ট। মার্চের স্বাধীনতার ইশতেহার সচেতন ও স্পষ্ট উচ্চারণ। এখানে কোনো দ্বিধা বা বিতর্কের বিষয় নেই ২৬ শে মার্চের মতো। জাতীয়তাবাদী আন্দোলনের সবচেয়ে অগ্রসর চিন্তা ধারণ করেছিলেন ছাত্ররা - তরুণ প্রজন্ম। এটি বুঝতে পারাটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ - আগামী দিনের জন্যেও। 

মাসুদ রানা, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিষয়ে কয়েকটা বিষয় স্পষ্ট করলেন। তিনি সুনির্দিষ্ট ভাবে নির্দেশ করলেন এটা কোথায় কোথায় খুজতে হবে

১/ স্বাধীনতার ইশতেহার।
২/ ৬ দফা
৩/ ১১ দফা। 

যেই পূর্বগামী ডকুমেন্ট থেকে ইশতেহার তৈরি সেগুলো একটু পর্যবেক্ষণ করি। ৬ দফায় যে বিষয়ে দাবী জানানো হয়েছিলো সেগুলো ছিল। 

১/ শাসনতান্ত্রিক কাঠামো ও রাষ্ট্রের প্রকৃতি। 
২/ কেন্দ্রীয় সরকারের ক্ষমতা। 
৩/ মুদ্রা ও অর্থ বিষয়ক ক্ষমতা। 
৪/ রাজস্ব কর ও শুল্ক বিষয়ক ক্ষমতা। 
৫/বৈদেশিক বাণিজ্য বিষয়ক ক্ষমতা 
৬/ আঞ্চলিক সেনাবাহিনী গঠনের ক্ষমতা 

আসুন আমরা আবার দেখি ১১ দফা কর্মসূচী 

১. শিক্ষা সমস্যার আশু সমাধান। অর্থাৎ, হামুদুর রহমান শিক্ষা কমিশন ও বিশ্ববিদ্যালয় সমস্ত আইন বাতিল করা এবং ছাত্রদের সকল মাসিক ফি কমিয়ে আনা।
২. প্রাপ্ত বয়স্ক ভোটে প্রত্যক্ষ নির্বাচনের মাধ্যমে সংসদীয় গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা করা এবং পত্রিকাগুলোর স্বাধীনতা দেওয়া এবং দৈনিক ইত্তেফাকের প্রকাশনার নিষেধাজ্ঞা তুলে ফেলা।
৩. ছয় দফা দাবির প্রেক্ষিতে পূর্ব পাকিস্তানে পূর্ন সায়ত্তশাষন প্রতিষ্ঠা।
৪. পশ্চিম পাকিস্তানের সকল প্রদেশগুলোকে (অর্থাৎ, উত্তর-পশ্চিম প্রদেশ,বেলুচিস্তান,পাঞ্জাব,সিন্ধু) স্বায়ত্তশাসন দিয়ে একটি ফেডারেল সরকার গঠন।
৫. ব্যাংক, বীমা, পাটকলসহ সকল বৃহৎ শিল্প জাতীয়করণ।
৬. কৃষকদের উপর থেকে কর ও খাজনা হ্রাস এবং পাটের সর্বনিম্নমূল্য ৪০ টাকা(স্বাধীনতার দলিলপত্রে উল্লেখ রয়েছে) ধার্য করা।
৭. শ্রমিকদের ন্যায্য মজুরি, চিকিৎসা, শিক্ষা ও বাসস্থানের ব্যবস্থা করা এবং শ্রমিক আন্দোলনে অধিকার দান।
৮. পূর্ব পাকিস্তানের বন্যা নিয়ন্ত্রন ও জল সম্পদের সার্বিক ব্যবহারের ব্যবস্থা গ্রহন।
৯.জরুরী আইন, নিরাপত্তা আইন এবং অন্যান্য নির্যাতনমূলক আইন প্রত্যাহার।
১০. সিয়াটো (SEATO), সেন্ট্রো (CENTRO)-সহ সকল পাক-মার্কিন সামরিক চুক্তি বাতিল এবং জোট বহির্ভূত নিরপেক্ষ পররাষ্ট্রনীতি গ্রহণ।
১১. আগরতলা মামলায় অভিযুক্ত ব্যাক্তি সহ দেশের বিভিন্ন কারাগারে আটক ছাত্র, শ্রমিক, কৃষক ও রাজনৈতিক কর্মীদের মুক্তি ও অন্যান্যদের উপর থেকে গ্রেফতারি পরোয়ানা প্রত্যাহার। 

৬ বা ১১ দফায় আমরা চেতনার চাইতে অনেক বেশী বৈষয়িক বিষয় পাই এবং আক্ষরিক অর্থেই এই দুই পূর্ববর্তী ডকুমেন্ট থেকে কিন্তু চেতনা বিষয়টা ঠিক সেখানে খুঁজে পাওয়া গেলনা। এবার আসুন দেখি স্বাধীনতার ইস্তেহারে কী ছিল? 

‘৫৪ হাজার ৫০৬ বর্গ মাইল বিস্তৃত ভৌগলিক এলাকার সাত কোটি মানুষের জন্য আবাসভুমি হিসেবে স্বাধীন ও সার্বভৌম রাস্ট্রের নাম বাংলাদেশ । এই দেশ গঠন করে নিম্নলিখিত তিনটি লক্ষ্য অর্জন করতে হবেঃ 

১) স্বাধীন ও সার্বভৌম বাংলাদেশ গঠন করে পৃথিবীর বুকে একটি বলিষ্ট বাঙালি জাতি সৃষ্টি ও বাঙালির ভাষা, সাহিত্য , কৃষ্টি , সংস্কৃতির বিকাশের ব্যবস্থা করতে হবে

২) স্বাধীন ও সার্বভৌম বাংলাদেশ গঠন করে অঞ্চলে অঞ্চলে,ব্যক্তিতে ব্যক্তিতে বৈষম্য নিরসন কল্পে সমাজতান্ত্রিক অর্থনীতি চালু করে কৃষক শ্রমিক রাজনীতি কায়েম করতে হবে ।

৩) স্বাধীন ও সার্বভৌম বাংলাদেশ গঠন করে ব্যক্তি,বাক ও সংবাদপত্রের স্বাধীনতা সহ নির্ভেজাল গণতন্ত্র কায়েম করতে হবে । 

এটাকে যদি আরও বুলেট পয়েন্টে বলতে হয় তবে, বলিষ্ঠ বাঙ্গালী জাতি, বৈষম্যহীন ন্যায়ের সমাজ, গণতন্ত্র। 

তাহলে এই পর্যন্ত এসে দাঁড়ালো তিনটা মুল বিষয় হচ্ছে সেই চেতনা যা ছাত্ররা ৩ রা মার্চ জাতির সামনে তুলে ধরল। এর পরে এল ২৫ শে মার্চের কালরাত। অতর্কিত হামলার পর তৈরি হোল প্রবাসী সরাকার। ১৭ ই এপ্রিল ঘোষিত হোল আমাদের প্রক্লেমেসন অব ইন্ডিপেন্ডেন্স। যেটা আমাদের যুদ্ধের বৈধতা দাবী করলো। সুস্পষ্ট ভাবে ঘোষণা করলো, কেন আমরা এই যুদ্ধ করছি। এবং আমরা যুদ্ধে জিতে কেমন দেশ তৈরি করবো। যেটাকে আগের সবাই “ব্রত” বলেছেন। সেখানে ছিল তিনটা বিষয়ঃ 

১/ সাম্য 
২/ মানব সত্তার মর্যাদা 
৩/ সামাজিক ন্যায় বিচার। 

সূক্ষ্ম ভাবে বিচার করলে স্বাধীনতার ইশতেহার আর প্রক্লেমেসন অব ইন্ডিপেন্ডেন্স অভিন্ন। এই দুটোকে এক করে আমাদের সহজ বোধের ভিতরে নিয়ে আসতে চাইলে বলতে হবে, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ছিলঃ 

১/ বৈষম্যহীন, মুক্ত এবং ন্যায় বিচারের গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র গঠন 
২/ যেই রাষ্ট্রে বলিষ্ঠ জাতি হিসাবে আমাদের বিকাশ ঘটবে এবং 
৩/ সেই রাষ্ট্রে বেড়ে ওঠা আমাদের মানবসত্তা বিশ্বে মর্যাদা পাবে। 

এই চেতনার বিরুদ্ধে বাংলাদেশের কোন নাগরিক কবে কথা বলেছে?

মুক্তিযুদ্ধের চেতনা কোন ধোঁয়াটে অদৃশ্য বিষয় নয় অত্যন্ত মূর্ত বিষয় এবং বলাই বাহুল্য যেই রাষ্ট্র এবং সমাজ তৈরি লক্ষ্য নিয়ে মুক্তিযুদ্ধ হয়েছিলো সেই লক্ষ্য এখনো অর্জিত হয়নি, তাই শাসক শ্রেণী সব সময় মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে মূর্ত করতে চায়না।


The Article is Written By 

পিনাকী ভট্টাচার্য


ভারতের মাস্টারপ্ল্যান - ইতিহাস ও- বর্তমান দেশ বিক্রয় । Bangladesh VS India Cold war 1971- 2015




মস্টারপ্ল্যান যারা বানায় ঃ




ভারতের প্রধান গোয়েন্দা দল রিসার্চ অ্যান্ড অ্যানালাইসিস উইং (র) ভারতের গুপ্তচর বিভাগ , যা ভারতের সামরিক বাহিনী বিভিন্ন দেশ এবং ব্যাক্তির বিরুদ্ধে ব্যাবহার করে থাকে । বেশিরভাগ বাংলাদেশির দেখা সালমান খানের Ek Tha Tiger ছবিতে তিনি র এর এজেন্ট হিসাবে অভিনয় করেছেন । ছবি টি খুব হিরোয়িক হলেও "র " এর সাথে ইসরায়েলের মোসাদের কোন পার্থক্য নেই। এমনকি পৃথিবীর যে কয়টা ইন্টিলিজেন্স এর সাথে মোসাদ কাজ করে তার মধ্যে "র" অন্যতম । এই কুত্তার বাচ্চা গুলো আজ বাংলাদেশের প্রত্যেকটি হায়ার পজিসনে ওঃদের পা চাটা দালাল দের বসিয়েছে । অনেক ক্ষেত্রে সেই দুর্নীতিবাজ নীতি নির্ধারক নিজেই হয়ত জানেন না তিনি ভারতের " র" এর সাথে কাজ করে দেশদ্রোহিতা করছেন


তাদের মূল স্ট্রাটেজি হোল অপারেশন কেন্দ্রীয় দেশের ভিতরে একটি বিশাল নেটওয়ার্ক প্রতিষ্ঠা করা. । এরা বৈধরূপে প্রতিষ্ঠিত সরকারকে উত্খাত, সন্ত্রাস ও নাশকতা উসকে রাজনৈতিক ভিন্নমত, জাতিগত বিভাগ, অর্থনৈতিক অনগ্রসরতা এবং এই রাষ্ট্রের মধ্যে গুপ্ত হত্যানির্দিষ্ট এজেন্ডা বাস্তবায়ন করতে মিডিয়া কে ব্যাবহার করে




Open Secrets. India’s Intelligence Unveiled by M K Dhar. Manas Publications, New Delhi, 2005 বইতে এম কে ধার তার দেশের গৌরব উজ্জ্বল র এর ব্যাপক সুনাম গেয়েছেন তিনি লিখেছেন " র এমন ভাবে টারগেটেড দেশের অভ্যন্তরীণ ভবিষ্যৎ কার্যকলাপ নিয়ন্ত্রন করার চেষ্টা করে যা স্বাভাবিক ভাবে দেখতে একটি ন্যাচারাল ঘটনার মত মনে হয় , যাতে তারা সব সময়য়ই ধরা ছোয়ার বাইরে রয়ে যায় ।"


বাংলাদেশে এর অবস্থান কোথায় এবং কিভাবে এর সচ্ছ ধারনা বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর নেই । তবে সার্বিক ভাবে বিভিন্ন ঘটনা প্রবাহ বিশ্লেষণ এবং কিছু বিচ্ছিন্ন ঘটনার মাধ্যমে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর গোয়েন্দা বিভিন্ন বিভাগের সাথে এদের একাধিক বার সংঘর্ষ হয়েছে । কিন্তু দিন দিন ভারতীয় সেনাবাহিনীর কুকুর গুলো আরো শক্তিশালী হয়ে গেছে পিলখানা হত্যাকাণ্ডের পড় থেকেই বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অনেক জেনারেল চুপ হয়ে গেছেন , এবং "র "এর এজেন্ট রা এখন ডিজি এফ আই এর অফিসে প্রকাশ্যে অবস্থান গ্রহন করেছে । সেনাবাহিনীর কোথায় কাউকে পদোন্নতি বদলি করা হবে তাও ডিসাইড করছে ।



Dr Shastra Dutta Pant একজন নেপালি এনালিস্ট এবং জাতীয়তাবাদী তার Machination of RAW in South Asia and Movement of RAW in Nepal " বইতে উল্লেখ করেছেন "The main objective of the RAW is to create internal trouble in neighbouring countries and take benefit from the trouble that the neighbouring countries face' মানে " র এর প্রধান উদ্দেশ্য হচ্ছে প্রতিবেশি দেশে অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব সৃষ্টি করা এবং সেই  দ্বন্দ্ব কে কাজে লাগিয়ে প্রতিবেশি দেশ থেকে সুবিধা আদায় করা "

Divide and Rule Theory

এবং আমরা স্পষ্টতই দেখতে পাচ্ছি আজকে বি এনপি আর আওয়ামিলিগির মধ্যে দা কুড়াল সম্পরক্য তৈরি করে আওয়ামিলিগ সরাকারের রাজনৈতিক দুর্বলতা কে কাজে লাগিয়ে আমাদের দেশের মাঝখান দিয়ে ভারতের রাস্তা করার পরিকল্পনা বস্তবায়ন করেই ফেলছে মনে হয় কিন্তু এটা সত্যি বাঙ্গালিরা রা মরে নাই । একাত্তর হয়ত আজকের তারুন্য দেখে নাই , তবে একাত্তর কেন হয়েছিল তারুন্য জানে এবং এর সম্মান দিতে জানে  । এই দেশ বিক্রির ট্রানজিট কখনই বাংলাদেশীরা বাস্তবায়ন করতে দেবে না । আজ হোক কাল হোক সকল রাজনৈতিক বিভেদ ভুলে ভারত কে দেওয়া ট্রানজিট প্রত্যাহারে আমরা আশা করি বাংলাদেশের সকল রাজনৈতিক , অরাজনৈতিক ছাত্র সংগঠন কাধে কাধ মিলিয়ে এগিয়ে যাবে  । যারাই বিরোধিতা করবে একাত্তরের মত নব্য রাজাকার হিসাবে দেশের ইতিহাসে লেখা থাকবে তাদের নাম  ।




ভারতের পররাষ্ট্র নীতির বিশ্লেষণ দেখায় যে ভারতীয় সরকার তাদের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট পররাষ্ট্রনীতির লক্ষ্য অর্জনের জন্য আক্রমনাত্মক মনোভাব ব্যাবহার করছে ।ভারতকে বিশ্বের মাঝে একটি গুরত্বপুরন দেশ হিসাবে তুলে ধরতে এবং দক্ষিন এশিয় এলাকায় নিজেদের আধিপত্য  বজায় রাখতে এদের যত রক্ত দরকার এরা নিতে দ্বিধা করে না । যারা খবর রাখেন তরা হয়ত মনে রাখবেন নেপালের রাজ পরিবার হত্যার কথা


ইংরেজ দের কাছ থেকে দেশ ভাগ হবার প থেকেই র নেপেলাএ প্রকাশ্য এবং অ প্রকাশ্য ভাবে বিভিন্ন কভারট অপারেশন চালিয়েছে । নেপালের রাজপরিবার ভারতের কমন ঈন্টারেস্ট এর সাথে না মেলার কারনে নেপালে বিভিন্ন চরমপন্থি সংগঠনকে অস্ত্র দিয়ে সে দেশের সরকারকে বেকায়দায় ফেলে এখন নেপাল কংগ্রেস এর বেসিরভাগ সিট দখল করে আছে ভারতের পা চাটা কুকুর গুলো ।এ নিয়ে  নেপালের সেনাবাহিনী এবং বুদ্ধিজীবীদের মাঝে অনেক কন্সপিরিসি থিউরি আছে link



বাংলাদেশে কিছুদিন আগে পাওয়া ব্যাপক অস্ত্র সস্ত্র এবং  যে ইসলামিক জঙ্গিদের ধরা হচ্ছে বলে খবর আসছে তাদের মধ্যে ৮০% ক্ষেত্রে সেই সল্প শিক্ষিত মানুষদের ব্রেইন ওয়াশ করে "র "এর ঈন্টিলিজেন্ট ব্রেইন অয়াশ ইউনিট । এরা সল্প শিক্ষিত মুসলিমদের আবেগের উপর খেলে তাদের চরম্পন্থি কিংবা জঙ্গি হিসাবে তৈরি করছে । যা বাংলাদেশকে বিশ্বের মাঝখানে একটি সন্ত্রাসী রাষ্ট্র হিসাবে অধিষ্ঠিত করবে । হয়ত অদূর কোন  ভবিষ্যতে সেই সন্ত্রাসী রাষ্ট্র  কে সন্ত্রাস মুক্ত করতে বাংলাদেশের রাস্তায় ভারতীয় ট্যাঙ্ক দেখা যেতে পাড়ে । বলবে আমাদের বাস ট্রাক এর নিরাপত্তার জন্য ট্যাঙ্ক ঢুকাচ্ছি , আর বাংলাদেশের সন্ত্রাসবাদ ভারতের জন্য হুমকি  । আমেরিকা যে স্টাইলে ইরাক আক্রমন করেছিল আরকি ।



১৯৭১ এ যখন বাংলাদেশীরা নিজেদের প্রানের জন্য আর স্বাধিনতার জন্য যুদ্ধ করছে তখন এই যুদ্ধ ছিল "র" মানে ভারতের এর জন্য পাকিস্তান আলাদা করার মাস্টার প্ল্যান । এবং পূর্ব পাকিস্তান মানে বাংলাদেশকে ভারতের একটি পশ্চিম বঙ্গের মত দাশ অঙ্গরাজ্য বানানোর চক্রান্ত । ওরা হয়ত ভুলে গিয়েছিল ওঃদের বাপ ইংরেজ রা পুড়া ভারত দখল করার সব শেষে অনেক কষ্টে এই বাংলাদেশে দখল করতে পেরেছিল ।এবং তখনকার ব্রটিশ সাম্রাজ্যের মাঝখানে সবচেয়ে বেশি আন্দোলন এবং প্রতিরোধ এই বাংলাদেশের মানুষরাই করেছিল এই বাঙলার বাঙ্গালিরা যে সব সময়য়ই ইক্টু বেশি ঘাউরা ছিল তা ইশা খা আর বার ভুইয়া দের ইতিহাস পড়লেই বোঝা যায় । খোদ মুঘলরাই অনেক কাহিনি করার পড় বার ভুইয়া দের ঠাণ্ডা করতে পেরেছিল ।


আর দেশ নিতে আসছে ইন্ডিয়া  , ওরা বাংলাদেশীদের এখন চিনে নাই ।


ইন্ডিয়ার " র " এর ফ্যক্ট বইতে বাংলাদেশের সৃষ্টি র এর সবচেয়ে বড়  ব্যারথতা বলে ধরা হয় । কারন তাদের প্ল্যান ছিল বাংলাদেশকে ইন্ডিয়ার অঙ্গরাজ্য বানাতে কিন্তু শেখ মুজিবুর রহমান , কর্নেল এজি এম ওসমানীর মত ব্যাক্তিদের দূর দৃষ্টির কারনে খালি হাতেই ফিরতে হয় ভারতীয় সেনাবাহিনীর ।


১৯৭১ এ যখন বাংলাদেশের দামাল ছেলেরা নিজের জীবন বাজি রেখে যুদ্ধ করে পাকিস্তানীদের বারোটা বাজায় দিসে । সব জায়গা থেকে পাকিস্তানি রা রি ট্রিট করছে ওঃদের ফোরস । তখন বিশ্ব জয় করেছে এমন ভঙ্গিমায় ভারতের সেনাবাহিনী বাংলাদেশে প্রবেশ করে গান গেয়ে , শুয়ে বসে থেকে এরা এসে পাকিস্তানের সাথে চুক্তি করে। ভাব টা এমন যুদ্ধ তো আমরাই করলাম , স্বাধিন ও আমরাই করে দিলাম ।এবং পরিকল্পিত ভাবে ১৬ই ডিসেম্বর পাকিস্তানের আত্মসমর্পণ অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের কোন সেক্টর কমান্ডার কিংবা কমান্ডার ইন চিফ কে আসতে দেওয়া হয় নি ।






১৬ ই ডিসেম্বর যখন পাকিস্তান আর্মি সারেন্ডার করবে বাংলাদেশ এর কাছে । কর্নেল এজি এম ওসমানী তখন সিলেট থেকে হেলিকপ্টার যোগে ঢাকায় আসছিলেন। তার হেলিকপ্টার সিলেটে গান ফায়ার এর সম্মুখীন হয় এবং ক্রাশ লান্ড করে এবং তিনি কোন রকম বেচে যান । কিন্তু তখন ওই এলাকায় তখন কোন পাকিস্তানি আর্মি ছিল না , কারন ১১ ই ডিসেম্বর থেকেই পাকিস্তান আর্মি ঢাকায় আসতে শুরু করে ।
তাহলে প্রশ্ন থেকে যায়
কারা ফায়ার করেছিল কর্নেল ওসমানীর হেলিকপ্টারে ? 
তাহলে কি ১৯৭১, ১৬ই ডিসেম্বরেই আমাদের কমান্ডার ইন চিফ কে মেরে ফেলার প্ল্যান করা হয়েছিল ?
M. A. G. Osmani
M. A. G. Osmani
কিংবা প্ল্যান করা হয়েছিল যাতে তিনি ঢাকায় আসতে না পড়েন ।  এবং পরবর্তীতে ওই এলাকায় ইন্ডিয়ান আর্মির সারভিল্যান্স জীপ তাদের উদ্ধার করে । সবকিছুর মূল উদ্দেশ্য ছিল নিয়াজির সাথে যেন মুক্তি বাহিনীর চুক্তি না হয় । ইতিহাসে যেন তা ভারত পাকিস্তান যুদ্ধ নামে লেখা থাকে । একটা সই আর অনুষ্ঠান কিভাবে বর্তমান কে প্রভাবিত করেছে তা দেখাই যাচ্ছে । আজ বাংলাদেশের কিছু জারজ জ্ঞ্বানপাপি আমাদের মুক্তিযুদ্ধের দামাল ছেলেদের খাটো করে যখন তার বন্ধু ভারতের চোগল খোরি করে তখন মনে হয় একাত্তর আবার ফিরে আসবে । নব্য রাজাকারদের আবারো বিচার হবে , নিজামি , মুজাহিদের মত ওরাও যে গাদ্দারি করছে ।


  মুক্তিযুদ্ধ সবসময়ই সেক্টর কমান্ডার এবং বাংলাদেশ আর্মির প্ল্যান এর মাধ্যমে পরিচালিত হোত । মুক্তিযুদ্ধ শুরু হবার ৮ মাস পড় যখন বিজয় হাতের নাগালে তখন কলকাতায় বাংলাদেশ সরকারকে চাপ দিয়ে বাংলাদেশ মুক্তি বাহিনীর অপারেশনাল কমান্ড নভেম্বর মাসে ঈন্ডিয়ান আর্মি ইস্টার্ন কমান্ড কে দেওয়া হয় । তখন চিফ অফ কমান্ড ওসমানী কুড়িগ্রামে স্ব শরীরে যুদ্ধ ক্ষেত্র দেখতে গিয়েছিলেন ।তিনি ফিরে এসে এ নিয়ে প্রচণ্ড রেগে যান এবং তাজউদ্দীন এর কাছে রেজিগনেশন এর কথা বলেন । ওসমানী সব সময়য়ই ঈন্ডিয়ার রুলিং টেন্ডিনশির কথা মনে রাখতেন । ঈন্ডিয়া যে অস্ত্র বা লজিস্টিক সাপোর্ট দিছে তা রাশিয়া ও আন্তর্জাতিক মাধ্যমেই দিচ্ছে । তাই হয়ত সার্বিক দিক বিবেচনা করে ওসমানী কে ১৬ই ডিসেম্বরই মেরে ফেলার প্ল্যান হয়েছিল । কর্নেল এজি এম ওসমানী বলেছেন ইন্ডিয়া না আসলে হয়ত আর কিছুদিন লাগত ঢাকা দখল করতে ।




বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের পরিপূর্ণ ভেজাল বিহিন ইতিহাস ১৯৭১ নেটওয়ার্কে প্রকাশিত হবে । এ নিয়ে এক্সটেণ্ডেড রিসারচস হচ্ছে ।



১৯৭১ এর পড় যখন অনেক আক্ষেপ নিয়ে ভারতীয় সেনাবাহিনীকে অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক চাপ মুলত রাশিয়া এবং চায়নার চাপে পড়ে ১৯৭২ তে বাংলাদেশ ছেড়ে যেতে হয় । বাংলাদেশ ছেড়ে যাবার সময় ফকিরের মত ট্রাক পড় ট্রাক অস্ত্র সস্ত্র নিয়ে যায় ভারত , যা ছিল পাকিস্তান সেনাবাহিনীর মানে আমাদের প্রাপ্য ।



প্রত্যক্ষ ভাবে সেনাবাহিনী চলে গেলেও পর্দার আড়ালের গুপ্তচর রা রয়ে যায় । যুদ্ধ বিপর্যস্ত দেশের বিভিন্ন বিষয় কে পুজি করে বাংলাদেশকে ডি মিলিটিরাইসড করার উদ্দেশ্যে সকল মুক্তি যোদ্ধা দের কাছ থেকে অস্ত্র নিয়ে নেওয়া হয় । জীবন বাজি রেখে যে দামাল ছেলেরা যুদ্ধ করে দেশ স্বাধিন করেছিল তাদের দেয়া হোল ইক্টি সার্টিফিকেট কেড়ে নেওয়া হোল ন্যায় প্রতিষ্ঠার অস্ত্র ।

অনেকে বাকশাল তৈরি এবং বঙ্গবন্ধুর কিছু সিদ্ধান্ত নিয়ে এখন সমালোচনা করলেও,  বাস্তবতা ছিল  তখনকার রাষ্ট্রীয় সিদ্ধান্তের খুবি কম নিতেন বঙ্গবন্ধু । বেশিরভাগ গুরত্বপুরন সিদ্ধান্ত আসত ভারতীয় সেনাবাহিনীর রিসার্চ উইং থেকে । যা পারতপক্ষে মানতে বাধ্য হতেন বঙ্গবন্ধু । মুক্তিযোদ্ধাদের হাত থেকে অস্ত্র নিয়ে নেওয়া , রক্ষি বাহিনী গঠন করে তাদের মুক্তিযোদ্ধা দের থেকে বেশি প্রায়োরিটি দেওয়া , মুজিব ইন্দিরা চুক্তির মত কালো চুক্তি র সকল স্ট্রাটেজিক সিদ্ধান্ত আসত লাল টেলিফোনে ।

 বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর একনিষ্ঠ সৈনিক কর্নেল ওসমানীর সাথে প্রতক্ষ বিরোধ দেখা দেয় ভারতীয় কাউন্টার পার্টের । পরবর্তীতে মুজিবুর রহমান রাশিয়া এবং কিছু বিস্ব নেতাদের সাথে বৈঠকে ভারতের একনিষ্ঠ প্রভাব থেকে নিজেকে মুক্ত করেন । কারন তিনিও বুঝতে পেরেছিলেন এক পাকিস্তানকে সরিয়েছেন আরেক পরাধীনতার স্বারক যুকে বসে আছে বাংলাদেশের বুকে বন্ধুত্বের নাম নিয়ে ।





তার পড়ের ইতিহাস সত্য মিথ্যা সকলেরই কম বেশি জানা । বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের প্রত্যেকটি কাণ্ডারিকে এক এক পড় পড় হত্যা করা হয়েছে । হত্যা করা হয়েছে যারা আমাদের সম্ভাব্য নেতা হতে পাড়তেন । বঙ্গবন্ধু যেখানে ৯ মাস পাকিস্তানে থেকে এলেন তাকে কিছু করা হোল না সেই .

বঙ্গবন্ধু কেন আজ আমাদের মাঝে নেই ?একজন রাষ্ট্র নেতা কে হত্যা করার জন্য শুধুমাত্র আঞ্চলিক ক্ষমতাই দরকার হয় না এতে বড় কোন কাল শক্তির ইন্ধন না থাকলে তা সম্ভব নয় । তখন এই ঢাকা শহরে সবচেয়ে বেশি ঈন্ডিয়ান এজেন্ট ছিল । তারা যদি আসলেই জানত বঙ্গবন্ধুর জীবনের ঝুকি আছে তাহলে তা কেন স্পেসিফিক ভাবে বলা হোল না । বললেন ইন্দিরা গান্ধী ফোন করে ।



১৯৭৪ সালে বাংলাদেশ ও ভারতের এক সম্মেলনে এ সিদ্ধান্ত হয় যে, উভয় দেশ একটি চুক্তিতে আসার আগে ভারত ফারাক্কা বাঁধ চালু করবে না। মুলত বঙ্গবন্ধুর আন্তর্জাতিক পরিচিতির কারনেই ভারত তখন পর্যন্ত ফারাক্কা চালু করার সাহস করে নাই ।যদিও বাঁধের একটি অংশ পরীক্ষা করার জন্য বাংলাদেশ সরকার ১৯৭৫ সালে দশ (২১ এপ্রিল ১৯৭৫ থেকে ২১ মে ১৯৭৫)
কিছু দিনের জন্য ভারতকে গঙা হতে ৩১০-৪৫০ কিউসেক পানি অপসারণ করার অনুমতি দেয়। বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হয় নির্মম ভাবে সপরিবারে ১৯৭৫ এর ১৫ই আগস্ট । ভারত ১৯৭৬ সালের শুষ্ক মৌসুম পর্যন্ত গঙা নদী হতে ১১৩০ কিউসেক পানি অপসারণ করে তাহলে  বঙ্গবন্ধুকে কারা, কখন , কোথায় হত্যা করবে তা কি খুব ভালভাবেই জানত ঈন্ডিয়ান এজেন্টরা  ?। নাকি ভারতের বৃহত্তর স্বার্থে এক ভাবে উস্কে দেওয়া হয়েছে বঙ্গবন্ধুর হত্যাকান্ড । যাতে ফারাক্কা নিয়ে কোন উচ্চ বাচ্চ না হয় । অভ্যন্তরীণ কোন্দলি তখন সবচেয়ে বড় ইস্যু হবে । সুক্ষ ভাবে ঘটনার সময়কাল আর বাস্তবতা বিচার করলে বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডে ভারতের পরেক্ষ সমর্থন ছিল বলেই মনে হয় ।



আজকে বঙ্গবন্ধু বেচে থাকলে ফারাক্কার পদ্মা আর ধু ধু মাঠ থাকত না , পদ্মার পাড়ের হাজার , হাজার হেক্টর জমি পতিত থাকত না , আমার বাংলাদেশের তিতাস নদিতে বাধ থাকত না , মোদী সাহেব এসে বাংলাদেশ কেনার প্লান করার সাহস পেত না । তবে বঙ্গবন্ধু মরে জান নি তার আদর্শ আর দেশপ্রেম কখন মারা যাবে না যুগে যুগে আরো বঙ্গবন্ধুর দেখা মিলবে যারা পরাধীনতার শেকল থেকে মুক্ত করবে এই বাংলাদেশ কে ।


১৯৭৫ সালের অনেক ঘটনার পড় জেনারেল জিয়া যখন বাংলাদেশের হাল শক্ত করে ধরেছেন , দেশকে কিছুটা সামনে এগিয়ে নি যেতে চেষ্টা করছেন ।। দেশের শাসন ভার নেবার পড়েই জাতিসঙ্গে সাধারন অধিভেশনে ফারাক্কা নিয়ে
প্রস্তাব উঠান হয় ।২৬ নভেম্বর ১৯৭৬ সালে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ ভারতকে বাংলাদেশের সাথে আলোচনার মাধ্যমে এই বিষয়টির সুরাহার করার নির্দেশ দিয়ে একটি প্রস্তাব গ্রহণ করে। কয়েকবার বৈঠকের পর উভয় দেশ ৫ নভেম্বর ১৯৭৭ সালে একটি চুক্তি করে। এর পড় থেকেই প্রেসিডেন্ট জিয়া পড়ে যান হিটলিস্টে । ভারত বুঝতে পাড়ে উনি বঙ্গবন্ধুর মতই আপোষহীন ।



১৯৭৬ সাল থেকে ভারত সেনাবাহিনীর নতুন প্লান ছকতে থাকে বাংলাদেশ কে আলাদা করার জন্য । পার্বত্য জেলা বান্দরবন ও খাগড়াছড়ি সহ পুড়ো চিটাগাং জেলা নিজেদের কবজায় আনতে তারা তৈরি করে শান্তি বাহিনীকে আধুনিক অস্ত্র সস্ত্র এমনকি অটোমেটিক মেশিনগান সাপ্লাই করা হয় খাগড়াছড়ি বান্দরবন এলাকায় । যার পেছনে মদদ দাতা ছিল ভারত তা আজ ওপেন সিক্রেট । কিন্তু তার পড়েও যারা ভারতকে জিগারের দোস্ত ভাবতে ভালবাসেন তাদের জাতীয়তা নিয়ে সন্ধেহ প্রকাশ করে বাংলাদেশ নামের অস্তিত্ব ।ওদের অস্ত্র গুলা কি আপনাদের বাপে দিয়া আসছিল শান্তি বাহিনিরে ।
শান্তু লারম র এজেন্ট এর সাথে ডানে ৩ নাম্বার 



যখন জিয়া এগিয়ে যাচ্ছেন । সার্ক প্রতিষ্ঠা করেছেন রিজিওনাল পাওয়ার ব্যালেন্সের জন্য , ভারতের সাথে টক্কর দেওয়ার জন্য । বিভিন্ন বিশ্ব নেতাদের সাথে দেখা করছেন । বিশ্বের মাঝে যখন মাথা উঁচু করে দাড়াতে শুরু করল বাংলাদেশ আবারো এক কালো রাতে বঙ্গবন্ধুর মত তাকে নির্মম ভাবে হত্যা করা হোল । আজ যদি জিয়া আর বঙ্গবন্ধু বেচে থাকতেন দেশটা হয়ত মালশিয়াকে ছাড়িয়ে যেত । যেখানে আজ বাংলাদেশীরা মালোশিয়া যাওয়ার জন্য ট্রলারে উঠে ।এই হত্যার পেছনে প্রত্যক্ষ ভাবে অংশ গ্রহন করে ভারতের এজেন্ট রা । সর্বোপরি এটিও ভারতের র এর একটি মাস্টার প্ল্যান ।




অনেকেই তার পড়েও বলেনযে এসব করে তার জেনুইন প্রমান কি ।
  তাদের একটি প্রশ্ন আপনি যে আপনার বাবার সন্তান তার প্রমান কি ?

ডি এন এ প্রযুক্তি ছাড়া এটা প্রমান করার ১০০% অথেনটিক কোন যুক্তি নেই আপনার কাছে । আপনার শৈশবের ঘটনাপ্রবাহ আর পারিবারিক স্ট্রাকচার দেখে আপনি বলতে পাড়েন উনি আপনার বাবা । ঠিক তেমনি ঘটনাপ্রবাহ , উদ্দেশ্য আর ইতিহাস ও কিছু নথির মাধ্যমে স্পষ্ট বাংলাদেশে শত ঘটনা প্রবাহের মধ্যমনি অন্য কোন মাস্টার মাইন্ড ।







এখন ট্রানজিটের মাধ্যমে আবারো আঘাত আসছে বাংলাদেশের স্বাধিনতার উপর । এ হোল এক সিস্টেমেটিক চেঞ্জ অভার থিউরি । আপনি না হোক যখন আপনার সন্তান , তার পড়ের সন্তান রা বাংলাদেশের রাস্তায় ঈন্ডিয়ান ট্যাগের গাড়ি দেখবে তখন আর ভারতকে যুদ্ধ করে বাংলাদেশকে তার রাজ্য বানাতে হবে না আমাদের পরবর্তী জেনারেশন নিজে থেকেই মাদার ঈন্ডিয়ার কাছে যাওয়ার জন্য মিছিল করবে । অলরেডি ৮, ৯ বৎসরের ছেলে পেলে ডোরেমন দেখে বাংলায় কথা বলা ভহুলে গেছে ।







এখন প্রশ্ন হোল ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কাছে আমরা কি দিয়ে যাব ?
 একটি পঙ্গু পরাধিন বাংলাদেশ !!! ?  । যার প্রতি হাজারো বৎসরের সুপার পাওয়ার দের চোখ ছিল দখল নেওয়ার , নাকি একটি স্বাধিন , আত্মনির্ভরশীল জাতি যা তাইওয়ান এর মত বিগ ব্রাদার চিনের সাথে টক্কর দেবে ।




এখন হয়  মিছিলে   নামবেন বাংলাদেশের জন্য ?
 না হয় আপনার সন্তান ভারতের অঙ্গরাজ্য হওয়ার জন্য  মিছিল করবে ,

কি চান ?




জবাব দিন ?

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সক্ষমতা ও কিছু গুরত্বপুরন তথ্য



আমাদের আশে পাশের দেশ মানে ,
            ভারত  যদি আমাদের আক্রমণ করে

তাহলে আমাদের প্রতিরক্ষা ব্যাবস্থা কি রকম আমরা কি আসলেই কোন প্রতিরোধ করতে পারব ?

এই ব্যাপারটি একটি খুব কমন আলোচনার বিষয়। কোন দেশের প্রকৃত সামরিক শক্তি কখনই সেই দেশ প্রকাশ করে না। এটি টপ সিক্রেট বিষয়। আর যুদ্ধে জিততে কিন্তু শুধু সামরিক শক্তিই একমাত্র নিয়ামক নয়। এর সাথে আরও অনেক বিষয় জড়িত। একজন মুক্তিযোদ্ধা সামরিক অফিসারের সাথে এই নিয়ে একদিন কথা হয়েছিল। ওনার বক্তব্য খুব ভাল লেগেছিল। সেটাই এখানে তুলে দিলাম

“প্রথমত বাংলাদেশের ভুমি প্রকৃতি এমন যে এখানে যারা আক্রমণ করতে আসবে তারা চলাচল ও জায়গা দখলের ক্ষেত্রে মারাত্নক সমস্যায় পড়বে। এজন্য বাংলাদেশকে বলা হয় DEFENDERS PARADISE ”. আমদের দেশে আর্মির সাতটি ডিভিশন আছে। সামরিক সুত্র অনু্যায়ী কমপক্ষে একুশটি ডিভিশন নিয়ে এখানে আক্রমণ করতে হবে। যা করতে গেলে এমনকি ভারতেরও পাকিস্তান এবং চীনের বর্ডার সংলগ্ন সেনানিবাস থেকে সৈন্য আনতে হবে, সীমান্ত প্রায় অরক্ষিত রেখে। যা তারা কখনই করতে চাইবে না।




এরপর যদি প্রচলিত যুদ্ধ ব্যাবস্থায় আমরা না পারি, তখন আমরা গেরিলা যুদ্ধ শুরু করব। যেমনটি আমরা করেছিলাম ১৯৭১ সালে। তখন আমাদের রেগুলার আর্মি ছিল না। শুধু আমরা কয়েকজন অফিসার আর বেঙ্গল রেজিমেন্ট ও আর্টিলারি রেজিমেন্টের সৈনিকেরা দেশের মানুষের সাথে মিলে যুদ্ধ চালিয়ে গিয়েছিলাম এবং পাকিস্তানীদের পরাস্ত করেছিলাম। এরপরও না পারলে হবে টোটাল পিপলস ওয়ার, যেটির মাধ্যমে ভিয়েতনাম ইউ এস এর মত পরাশক্তিকে পরাজিত করেছিল।’’

বর্তমানে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী সারাদেশে ছড়ানো ২৩টি ব্রিগেডসহ ৭টি পদাতিক ডিভিশনে বিভক্ত। এতে একটি আরমার্ড (সাঁজোয়া) ব্রিগেড (২টি সাঁজোয়া রেজিমেন্ট), সাতটি গোলন্দাজ ব্রিগেড, একটি স্বয়ংসম্পূর্ণ এয়ার-ডিফেন্স গোলন্দাজ ব্রিগেড, একটি ইঞ্জিনিয়ার্স ব্রিগেড, একটি কমান্ডো ব্যাটেলিয়ন এবং দু’টি এভিয়েশন স্কোয়াড্রন আছে। এই বাহিনী নিম্নোক্ত আর্মস ও সার্ভিস কোরসমূহে বিভক্ত






কমব্যাট সাপোর্ট
  • আর্মি এভিয়েশন রেজিমেন্ট 
  • আর্টিলারি রেজিমেন্ট 
  • এয়ার ডিফেন্স আর্টিলারি 
  • ইঞ্জিনিয়ারিং কোর 
  • মিলিটারি ইন্টেলিজেন্স 
  • সিগনাল কোর 
  • মিলিটারি পুলিশ কোর

সেনাবাহিনীর বিভাগ বা কোর গুলোর নাম খুব সংক্ষিপ্ত এবং সহজবোধ্য করে নিচে দেয়া হল

ক। আর্মার্ড – ট্যাঙ্ক বা সাঁজোয়া বাহিনী

খ। আর্টিলারি – কামান বা গোলন্দাজ বাহিনী

গ। সিগন্যালস – এরা ওয়্যারলেস, টেলিফোন, রাডার ইত্যাদির মাধ্যমে যোগাযোগ স্থাপন ও রক্ষা করে

ঘ। ইঞ্জিনিয়ার্স – এরা যাবতীয় ইঞ্জিনিয়ারিং কাজ ছাড়াও পদাতিক বাহিনীর কাজও করতে সক্ষম

ঙ। ইনফ্যান্ট্রি – পদাতিক বাহিনী

চ। আর্মি সার্ভিস কোর – এরা সেনাবাহিনীর ফ্রেশ এবং ড্রাই রেশন, গাড়ি, চলাচলের তেল ইত্যাদি সরবরাহ করে

ছ। এএমসি (আর্মি মেডিক্যাল কোর) – সেনাসদস্য ও তার পরিবারের চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করে
জ। অর্ডন্যান্স – যুদ্ধ ও শান্তিকালীন সময়ে ব্যাবহারের জন্য বিভিন্ন সাজ সরঞ্জাম,পোষাক,নিত্য ব্যাবহারের দ্রব্য সামগ্রী সরবরাহ করে
ঝ। ইএমই (ইলেক্ট্রিক্যাল এ্যান্ড মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং কোর) – বিভিন্ন ধরণের যন্ত্র তৈরি ও গাড়িসহ অন্যান্য বিভিন্ন যন্ত্র ও যন্ত্রাংশের মেইন্ট্যানেন্সের কাজ করে
ঞ। মিলিটারি পুলিশ – এরা সেনানিবাসের ভেতর পুলিশিং, ট্রাফিক নিয়ন্ত্রন ইত্যাদি কাজে নিয়োজিত থাকে
ট। এইসি (আর্মি এডুকেশন কোর) – সেনাবাহিনীর বিভিন্ন স্কুল ও প্রতিষ্ঠানে শিক্ষকতা করে
এছাড়াও আর্মি ডেন্টাল কোর, রিমাউন্ড ভেটেরেনারী এ্যান্ড ফার্ম কোর , ক্লারিক্যাল কোর ইত্যাদি আরও কিছু ছোটখাট কোর বা বিভাগ রয়েছে ।


পার্বত্য চট্টগ্রাম

১৯৭৬ খ্রিস্টাব্দ থেকে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী পার্বত্য চট্টগ্রামে কাউন্টার ইন্সারজেন্সি অভিযানে চালিয়ে যাচ্ছে শান্তিবাহিনীর বিরুদ্ধে, যারা উপজাতীয় বিচ্ছিন্নতাবাদের জন্য লড়ছে। ভারতের সামরিক গোয়েন্দা সংস্থা র তাদের অস্ত্র এবং গোলাবারুদ দিয়ে সংগঠিত করেছে ।  ১৯৯৭ খ্রিস্টাব্দে সরকার ও শান্তিবাহিনীর সঙ্গে ত থাকথিত শান্তি চুক্তি সম্পন্ন হওয়ার পর থেকে পার্বত্য চট্টগ্রাম অপেক্ষাকৃত শান্ত। যদিও এখনো সেখানে প্রচুর সেনা মোতায়েন রয়েছে শান্তি প্রতিষ্ঠা, শান্ত-করণ ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য।
পার্বত্য চট্টগ্রামে সাধারণ নাগরিকদের স্বাভাবিক জীবন-যাপন অব্যাহত রাখতে সেনাদের প্রচুর পরিশ্রম করতে হচ্ছে। সেনাবাহিনীকে প্রয়োজনে বিজিবি (সাবেক বিডিআর) সহযোগিতা করে থাকে। প্রধানত শীতকালে সেনারা স্থানীয় মানুষকে খাদ্য, কাপড় ও অন্যান্য নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করে থাকে। তারা বন্যা এবং পাহাড় ধসের সময়ও প্রয়োজনীয় সহযোগিতা করে। সেনাবাহিনী পার্বত্য অঞ্চলের শান্তি, সংহতি, স্থিতিশীলতা বজায় রাখার প্রধান কারিগর হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে সক্ষম হয়েছে।


বাংলাদেশ সেনাবাহিনী জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা (ইউএনপিএসও)-এর সাথে সক্রিয়ভাবে জড়িত। ১৯৯১ খ্রিস্টাব্দের ১ম উপসাগরীয় যুদ্ধ চলাকালে, বাংলাদেশ সেনাবাহিনী ২,১৯৩ জন সদস্যবিশিষ্ট একটি দলসৌদি আরব এবং কুয়েতের শান্তি রক্ষা কাজের পর্যবেক্ষক হিসেবে প্রেরণ করে। পরবর্তীতে, বাংলাদেশ সেনাবাহিনী নামিবিয়াকম্বোডিয়াসোমালিয়াউগান্ডা/রুয়ান্ডামোজাম্বিক, প্রাক্তন যুগোস্লাভিয়ালাইবেরিয়াহাইতি,তাজিকিস্তানপশ্চিম সাহারাসিয়েরা লিওনকসোভোজর্জিয়াপূর্ব তিমুরকঙ্গোআইভরি কোস্ট ও ইথিওপিয়ায় শান্তি রক্ষা কাজে অংশগ্রহণ করে। ২০১০ খ্রিস্টাব্দের সেপ্টেম্বর মাসে বাংলাদেশের প্রায় ১০,৮৫৫ সৈন্য সারা বিশ্বে জাতিসংঘ শান্তি-রক্ষী বাহিনীতে কর্মরত আছে, যা পৃথিবীর অন্য যে-কোন দেশ হতে বেশি।
A beautiful Video To watch 


ইউএন এ বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর এত চাহিদার কারণের পেছনে রয়েছে বেশ কিছু বিষয়। অনেকেরই একটা ধারণা আছে যে, আমাদের সেনাবাহিনী এমন কি হয়ে গেল যে সারা দুনিয়ায় এত চাহিদা। এই গরীব দেশের আর্মির অস্ত্র সাজসরঞ্জাম কিই বা আছে। দুনিয়ায় এত উন্নত দেশের আর্মি আর সাজ সরঞ্জাম থাকতে কেন বাংলাদেশ ইউএন এ সবোচ্চ সংখ্যক সেনা পাঠাচ্ছে।
আসলে বাংলাদেশ আর্মির মত এত সস্তায় এত ভাল পারফরম্যান্স অন্য কোন আর্মির কাছে ইউএন পায় না বলেই এদের এত চাহিদা। ন্যাটো সহ অন্যান্য ফোর্স চৌকস হলেও ভীষণ ব্যয়বহুল। একই সাথে আছে ডিসিপ্লিনের ব্যাপার, বিশেষত আফ্রিকার দেশগুলোতে অবাধ যৌনাচারে অভ্যস্ত সেনা সদস্যদের এইডস আক্রান্ত হবার সম্ভাবনা। সেদিক থেকে আমাদের দেশের সেনারা অনেক নিরাপদ।
এখন আসি মিশন এলাকায় আমাদের সেনাদের কাজ প্রসঙ্গে। মিশন চলে যুদ্ধরত বা যুদ্ধবিদ্ধস্থ দেশ গুলোতে। এসকল বেশির ভাগ দেশেই সরকারের বিরোধী বিদ্রোহী গ্রুপ থাকে যারা সুযোগ পেলে ইউএন ট্রুপসের ওপরও হামলা চালায়। তাদের নিবৃত্ত করে যুদ্ধরত বা যুদ্ধবিদ্ধস্থ একটা দেশের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা কিন্তু খুব সহজ কাজ নয়। বিশেষত সেই দেশগুলো যখন আফ্রিকার (কিছু ক্ষেত্রে যুদ্ধরত, কিছু ক্ষেত্রে আধা সভ্য বা বর্বর) মানুষে পরিপূর্ণ। কিন্তু আমাদের সেনারা এই দুরহ কাজটি অত্যন্ত সফলভাবে করে যাচ্ছে এবং সারা বিশ্বে দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করার পাশাপাশি দেশকে প্রচুর রেমিট্যান্স দিচ্ছে বহিঃবিশ্বের মানুষ যে কয়টি কারণে বাংলাদেশের নাম জানে তার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে ইউএন মিশনে সর্বোচ্চ শান্তি রক্ষী প্রেরণকারী দেশ হিসেবে।
প্রায়ই একটা কথা শোনা যায় যে আমাদের সেনা বাহিনী যুদ্ধ করারা উপযোগী কি না। জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে কিন্তু আমাদের কিন্তু সেনাদের প্রায়ই যুদ্ধাবস্থার মধ্যে কাজ করতে হয়। গত বছর আইভরি কোস্টে যখন যুদ্ধ দানা বেঁধেছিল তখন কিন্তু আমাদের দেশের সেনারাই শান্তি রক্ষায় বলিষ্ঠ ভুমিকা রেখে সারা বিশ্বে প্রশংসিত হয়েছে। এর আগে কঙ্গোতে শান্তিরক্ষা করতে গিয়ে বিপ্লবীদের সাথে যুদ্ধে বেশ কয়েকবার হতাহতের ঘটনা ঘটেছে।



মিশনে যুদ্ধ করতে যে সরঞ্জামাদি লাগে, সেগুলো জাতিসংঘের নিয়মানুযায়ী না হলে তার ভাড়া পাওয়া যায়না। জাতিসংঘ কতৃক এই নিয়ম করা হয়েছে যাতে করে ভালো সরঞ্জামাদির মাধ্যমে শান্তি রক্ষীদের জীবনের নিরাপত্তা নিশ্চিত হয়। অথচ আমাদের সেনারা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পুরনো এবং ঝুঁকি-পূর্ণ সরঞ্জামাদি দিয়ে মিশন করে আসে। নইলে সরকারের মোটা অঙ্কের টাকা লাগতো এ সব সরঞ্জাম কিনতে। তারা পুরনো সরঞ্জাম নিয়ে যায় এই মোটিভেশনে যে, আমাদের দেশ গরীব, নতুন সরঞ্জাম কেনার পয়সা নেই। কষ্টটা না হয় আমরাই করি।
যখন জাতিসংঘ থেকে যখন ইন্সপেকশনে আসে, তখন, সাধ্যের সব কিছু দিয়ে সেই পুরোনো জিনিষ গুলোকে “যুদ্ধোপযুক্ত” হিসেবে সার্টিফাই করায় তারা। কারণ, যুদ্ধোপযুক্ত না হলে রিম্বার্সমেন্টের টাকা পাওয়া যাবেনা। রিম্বার্সমেন্টের এই টাকা কিন্তু সেনারা নিজেরা পায়না। পায় সরকার। মিশনে সেনাদের থাকার জন্য পাকা ঘর পাওয়ার কথা। জাতিসংঘ সেই ঘর না দিতে পারলে বিনিময়ে টাকা দেয়। আমাদের সেনারা বেশির ভাগ সময়েই তাবুতে থাকে। তাবুতে থাকার কারণে প্রাপ্ত মোটা অংকের পুরো টাকাটাই কিন্তু সরকারী কোষাগারে জমা হয়।
আমরা গার্মেন্টস সহ অন্যান্য অনেক শিল্পের মাধ্যমে রাজস্ব আয়ের ব্যাপারে অবগত আছি। একই সাথে এটাও সত্য যে এদেশেই শ্রমিকদের প্রাপ্য সামান্য বেতনের জন্য রাজপথে নামতে হয়। তেমনি বিপুল পরিমান রাজস্ব প্রদানকারী সেনাবাহিনীর এই রূপটি কিন্তু আমাদের অগোচরেই থাকে। চোখের সামনে আমাদের শুধু ভাসে জলপাই রঙের নির্মমতা। দুর্ভাগা আমরা, কত ডেডিকেশন নিয়ে কাজ করলে আফ্রিকার একটা দেশের দ্বিতীয় ভাষা হিসেবে বাংলাকে অধিষ্ঠিত করে দেশকে এমন বিরল সম্মান এনে দেয়া যায় কখনো ভেবেছেন কি?

Commando Training Video -Bangladesh Army 




সেনাবাহিনীর অফিসারদের যে সকল শিক্ষার মধ্যে দিয়ে যেতে হয় ঃ
ক। বেসিক কোর্স – কোর ভেদে সাধারনত ৪ মাস হতে ১০ মাস সময়সীমার হয়, সাধারণত সেকেন্ড লেফটেন্যান্ট/ লেফটেন্যান্ট অবস্থায় এই কোর্স করানো হয়। প্রতিটি অফিসারকেই নিজ নিজ প্রফেশনাল জ্ঞান প্রদান করাই এই কোর্সের উদ্দেশ্য।
খ। অস্ত্রের উপর কোর্স – সব অফিসারকেই অস্ত্র চালনায় অত্যন্ত দক্ষ শার্প শুটার করে তোলার জন্য বি এম এ তে দুই বছর প্রচুর অনুশীলন ও এই বিষয়ে পড়াশোনা করতে হয়। অফিসার হবার পর পুনরায় লেফটেন্যান্ট অবস্থায় তিন মাস ব্যাপী একটি কোর্স করানো হয় যাতে আগের শেখা বিষয়গুলো তারা ঝালিয়ে নিতে পারে। সাধারণভাবে বলা যায় যে এই প্রশিক্ষণ গ্রহনের ফলে প্রতিটি অফিসারই সব ধরণের অস্ত্র সম্পর্কে বিস্তারিত তাত্ত্বিক জ্ঞান অর্জন করে, এক একজন দক্ষ মার্কস ম্যান হয়ে ওঠে এবং সব ধরণের অস্ত্র চালনায় প্রচন্ড আত্মবিশ্বাসী হয়। সেনা অফিসারদের মধ্যে অনেক স্নাইপার ও রয়েছেন।
গ। কমান্ডো কোর্স – প্রায় তিন মাস সময়সীমার এই কোর্সটি প্রচন্ড কষ্টসাধ্য একটি কোর্স যা প্রত্যেক সেনা অফিসারকে বাধ্যতামূলক ভাবে করতে হয়। এই কোর্সে প্রতিটি অফিসারকে আমানুষিক কষ্টের মধ্যে রাখা হয়। এমনিতেই বি এম এর প্রশিক্ষণ প্রচন্ড কষ্টসাধ্য। অফিসার হবার এক থেকে দুই বছরের মধ্যে এই কমান্ডো কোর্স করতে হয়। এই তিন মাসের কষ্ট এমনকি বিএমএ জীবনের দুই বছরের অমানুষিক কষ্ট কেও হার মানায়।
প্রায় প্রতিদিনই নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে ৬ কিমি থেকে ৪০ কিমি পর্যন্ত দৌড়, অ্যাসল্ট কোর্স(বিভিন্ন ধরণের প্রতিবন্ধকতা অতিক্রম),টানা দৌড়ে উঁচু উঁচু ৭ টি পাহাড় অতিক্রম, আনআর্মড কম্ব্যাট ট্রেনিং (মার্শাল আর্টের সামরিক সংস্করন), ট্র্যাকিং, ম্যাপ অনুসরণ করে দুর্গম এলাকায় ডে মার্চ বা নাইট মার্চ,কমান্ডো কৌশল অনুসরন করে শত্রু এলাকার ভেতরে প্রবেশ করে বিভিন্ন অভিযান পরিচালনার অনুশীলন,খাবার ছাড়া দুর্গম এলাকায় বেঁচে থাকার সারভাইভাল ট্রেনিং, উড়ন্ত হেলিকপ্টার থেকে র‍্যাপেলিং সহ অনেক দুঃসাহসিক প্রশিক্ষণ নেয়ার পাশাপাশি রণকৌশলের ওপর পড়াশোনা করতে হয় এ সময়।
এছাড়া নির্বাচিত অফিসাররা আরও ৬ মাস ব্যাপী কমান্ডো প্রশিক্ষণ নেয় যেখানে উপরে উল্লেখিত প্রশিক্ষণ ছাড়াও আরও অনেক দুঃসাহসিক প্রশিক্ষণ পরিচালিত হয়। প্যারাশুট নিয়ে ফ্রী ফল, জাম্প মাস্টার, রিগ্যার ইত্যাদি কমান্ডো অনুশীলনের অন্তর্গত। এ ধরণের প্রশিক্ষনে প্রশিক্ষিত দের জাতিসংঘে ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। কমান্ডোদের মটো হচ্ছে do or die . এই প্রশিক্ষণ চলাকালে মৃত্যুর ঘটনাও ঘটেছে। ক্যাজুয়াল্টি তো অহরহ ঘটে। প্রতিটি সেনা অফিসারই এক একজন বেসিক কমান্ডো।
ঘ। জুনিয়র স্টাফ কোর্স – এ কোর্স টিও বাধ্যতামূলক ভাবে সকল ক্যাপ্টেন র‍্যাঙ্কের অফিসারদের করতে হয়। এটি চার মাস ব্যাপী এবং সম্পূর্ণ পড়ালেখার একটি কোর্স। এখানে রণকৌশল বা ট্যাকটিকস সম্পর্কে বিস্তারিত ধারণা দেয়া হয়।
উপরের সবগুলো কোর্সই মানের দিক থেকে বিশ্ব মানের এবং প্রতিটি কোর্সেই উল্লেখ যোগ্য সংখ্যক বিদেশী অফিসার যোগদান করে। শুধু উপমহাদেশের অফিসাররা নয়, মধ্যপ্রাচ্যের, আফ্রিকা, ইউরোপ মহাদেশ সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে ক্যাপ্টেন এবং মেজর র‍্যাঙ্কের অফিসাররা এইসব সামরিক প্রশিক্ষণ নিতে বাংলাদেশে আসে এবং আমাদের প্রশক্ষনের মানের ভুয়সী প্রশংসা করে থাকেন। এমনকি আধুনিক বিশ্বে পরাশক্তি হিসেবে পরিচিত ইউ এস আর্মি এবং মেরিন অফিসার এবং সেনারা এই ধরণের প্রশিক্ষনে অংশ নেয়ার পাশাপাশি বাংলাদেশ সেনা বাহিনীর সাথে প্রতি বছরই যৌথ সামরিক অভিযান চালায় যা ‘ব্যালান্স বাফেলো’ এক্সারসাইজ নামে পরিচিত।
যারা বাংলাদেশ আর্মির অফিসারদের প্রশিক্ষণের স্ট্যান্ডার্ড সম্পর্কে সন্দিহান,তাদের জন্য আশা করি উপরের তথ্যগুলো সহায়ক হবে।

আর এখন ...।

ভারতীয় আর্মির সাথে বাংলাদেশে আর্মির ড্রেস একই রকম করে ফেলা হয়েছে
পাশাপাশি ২ দেশের জেনারেলরা উর্দি পড়ে দাড়াইলে বুঝাও যাবেনা কে কোন দেশের।
আর বিজিবি তো পুড়ো বি এস এফ এর মত করা হয়েছে ।
একটা একটা করে এভাবে বাংলাদেশ নামের আলাদা দেশটাকে আর আলাদা রাখবে না, ভারতে মিশায়া ফেলবে এই রাজাকারগুলা। যেন ভারত আর বংলাদেশ আসলে একটাই দেশ , আলাদা কোন দেশ না।
সেদিনের অপেক্ষায় থাকতে হবেনা।
কিন্তু খোদার কসম , পারবি নারে , পারবি না।
 সেনাবাহিনীর সেটা হতে দিবেনা।
ওরা মুখ বুজে সব দেখতেসে।
সময়ের প্রয়োজনে আমাদের  ছেলেরাও আবার অস্ত্র হাতে নিবে তোদের মেরে শেষ করার জন্য।
বাংলাদেশ স্বাধীন আছে , বাংলাদেশ স্বাধীন থাকবে - খোদার কসম